মুসলমান এবং মহানবীকে নিয়ে অবমাননা, অভিযুক্ত কুবি শিক্ষার্থীকে পুলিশে সোপর্দ

ডিবিবি ডিবিবি

কুবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২:৩০ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৯ | আপডেট: ২:৩০:অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৯ |

মুসলমান এবং ইসলাম ধর্মের নবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের একটি গ্রুপে বিরুপ মন্তব্য করেছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের জয়দেব চন্দ্র শীল নামে এক শিক্ষার্থী। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেইসবুক গ্রুপগুলোসহ নানা মহলে তার এ মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে শাস্তির দাবি করছে শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, শনিবার রাতে ‘Voice of America’ নামে একটি ফেইসবুক পেইজের ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একটি ভিডিওর একটি কমেন্টে ‘All muslims in the world believe only on terrorism ideology that had been exercised by Hazrat Muhammed (s).’ লিখে কমেন্ট করেন এই শিক্ষার্থী । এ কমেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নজরে আসলে তা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রুপগুলোতে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকে মুসলমান এবং ইসলাম ধর্মের নবী হযরত মোহাম্মদ(সঃ) কে নিয়ে এই রকম বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্যের জন্য জয়দেবকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের দাবি জানায়। শিক্ষার্থীরা তার এ বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তাকে আইনের মাধ্যমে দ্রুত সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়ার জোর দাবি জানান ।

আইন বিভাগের ছাত্র তানিম লিখেন ,ইদানিং কিছু উগ্রবাদী লোক বিভিন্ন স্থানে উগ্র মন্তব্য করে এ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধ্বংসে তৎপর।
তাদের সাথে এই ছেলের যোগসাজশ আছে কিনা খতিয়ে দেখা দরকার।

মাহমুদুল হাসান লিখেন , প্রিয় নবিজী সা. কে নিয়ে কটুক্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সব অপরাধের ক্ষমা আছে কিন্তু ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত দিলে সেটা ক্ষমার অযোগ্য।অপরাধীকে এমন শাস্তি দেওয়া হোক যাতে ভবিষ্যৎ এ কেউ এরকম হীন কর্মকান্ড করার দুঃসাহস দেখাতে না পারে।

খালেদুল হক বলেন, জয়দেব কি শুধু কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা মুসলিম আছে তাদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিছে নাকি? সে কমেন্ট করেছে Voice of America তে, আর ক্ষমা চাইতেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রুপে! নিজের টাইম লাইনেও কিছু নাই। কি হাইস্যকর না বিষয় টা? অতি দ্রুত তার ছাত্রত্ব বাতিল করে আজীবনের জন্য বহিস্কার করে শাস্তির আওতায় আনা হোক।

জয়দেবের বিরুদ্ধে ধর্ম বিদ্বেষ ছড়ানোর বাহিরেও রয়েছে মেয়েদের হয়রানি করার অভিযোগ। এই বিষয়ে তাসনিম রহমান আসিফ বলেন, এই ছেলে ফিনান্স ৯ম ব্যাচ, হোমটাউন বরিশাল। সে আগেও বাসে দুইটা মেয়েকে ডিস্টার্ব করসিলো। তখন আমি সহ কয়েকজন বড়ভাই কে নিয়ে যখন তাকে চার্জ করি সে বিন্দুমাত্র দু:খিত ছিলই না। উপরন্তু তার বন্ধু বান্ধব তাকে জোর করেই এক প্রকার এর সরি বলায়। তার সরি বলার নমুনা আমি ভালো মতই দেখেছিলাম। আর মুচলেকা তো বাদ ই দিলাম।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত জয়দেব চন্দ্র শীল বলেন,‘আমি ঐ গ্রুপটিতে যারা কমেন্ট করেছে তাদের উদ্দেশ্য এটি কমেন্ট করেছিলাম। পরে আমার ভুল বুঝতে পেরে আমি সেটা মুছে দেই। আমি এর জন্য সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, আমি বিষয়টি মাত্র জানতে পেরেছি। ঘটনার খোঁজ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, অভিযুক্ত জয় দেব কুমিল্লার ঠাকুরপাড়ার একটি মেসে থাকতো। যেখান থেকে তাকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয় । সে বর্তমানে কুমিল্লা কোতোয়ালী থানায় পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।