মোদি বিরোধী আন্দোলন কেন এত জোড়ালো

জোবায়ের সাকিব

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২:৩৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ৩০, ২০২১ | আপডেট: ১২:৩৮:অপরাহ্ণ, মার্চ ৩০, ২০২১ |

ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক অনেক গভীরের। এক সময় ভারত ও বাংলাদেশ একই সাথে ছিল। এরপর ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর বাংলাদেশ পাকিস্তানের অংশ হয়ে যায়,কিন্তু পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী শুরু থেকেই পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের সাথে বৈষম্য করতে থাকে। শাসনের নামে শোষণ করে গেছে সবসময়। পাকিস্তানের রোষানল থেকে মুক্তির জন্য বাংলার মানুষ যুদ্ধ করতে করে ১৯৭১ সালে,কিন্তু সে সময় বাঙালির সাহস থাকলেও যুদ্ধ করার মতো পর্যাপ্ত অস্ত্রশস্ত্র ছিল না। বাঙালীদের এমন কঠিন সময়ে প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারত অসামান্য অবদান রেখেছে। দল,মত, ধর্ম নির্বিশেষে সকল ভেদাভেদ ভুলে ভারত সরকার এগিয়ে এসেছিল আজ থেকে ৫০ বছর আগে। সময়ের সাথে সাথে সরকারের পরিবর্তন হয়েছে সেখানে , হয়েছে নীতিমালারও পরিবর্তন। স্বাধীনতার ৫০ বছরে এসে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে অনেক চাওয়া-পাওয়ার কমতি দেখা দেয়। ভারতে জন্ম নেয় উগ্র হিন্দুত্ববাদের ও মুসলিম বিদ্বেষী কর্মকাণ্ড।

কেন বাংলাদেশে মোদি বিরোধী আন্দোলন এত সক্রিয়?

ভারতের বিজেপি সরকার নরেন্দ্র মোদি তার রাজনৈতিক জীবনের বিভিন্ন সময় ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড নিয়ে তুমুল আলোচনায় এসেছেন। ক্ষমতার অপব্যবহার করে ২০ কোটি মুসলমানদের দেশে বারবার হিন্দুত্ববাদের সমর্থকদের সাহায্য করে গেছেন। নয়া দিল্লির বিভিন্ন অঞ্চলে মুসলিম হত্যা, বিভিন্ন সময়ে ১০ এর অধিক মসজিদে আগুন, বাংলাদেশের সিমান্তে ন্যাক্কারজনক হত্যাকাণ্ড, উগ্র হিন্দুত্ববাদের সমর্থন,প্রশাসনের হিন্দুত্ববাদের পক্ষে কাজ করা, বাবরি মসজিদ ধ্বংস এই সবই পরিচালিত হচ্ছে বিজেপি সরকারের অধীনে।

একটা সরকারের অধীনে এতসব ইসলাম বিদ্বেষী আয়োজন স্বাভাবিক ভাবেই সকল মুসলমানদের মনে আঘাত হানে। মুসলিম বিশ্বের কয়েকটি দেশ মোদি সরকারকে এসব ন্যাক্কারজনক ব্যপার থামানোর আহ্বান করলে তিনি তা কর্নপাত করননি। বাংলাদেশের সাথে ভারতের সম্পর্ক আত্মার হলেও মুসলিম হত্যার কারণে এ সম্পর্কের অবনতি ঘটতে শুরু করে। উভয় দেশের প্রধানদের বৈঠক কার্যক্রম চললেও নেই বাংলাদেশের জনগণের সমর্থন নরেন্দ্র মোদির ওপর। সম্প্রতি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীতে লক্ষ্য করা যায় মোদি বিরোধী আন্দোলন। হেফাজতে ইসলাম আন্দোলনের ডাক দিলেও এর সাথে পূর্ণ সমর্থন দিয়েছে বাংলাদেশের বামপন্থীদের সংগঠন, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদসহ দেশের নানা পর্যায়ের মানুষ।