dark_mode
Thursday, 27 January 2022
Logo
তালেবান সরকারে প্রতিনিধিত্বের সুযোগ চেয়ে আফগান নারীদের সমাবেশ

ছবি : ইন্টারনেট

তালেবান সরকারে প্রতিনিধিত্বের সুযোগ চেয়ে আফগান নারীদের সমাবেশ

আফগানিস্তানে যেসব নারী সরকারি ও বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত আছেন তারা ভবিষ্যতে যে কোন সরকারে নারীদের প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ চেয়ে একটি সমাবেশ করেছে । টুলুনিউজের খবরে বলা হয়েছে সমাবেশটি এমন সময় কা হয়েছে যখন তালেবান বলেছে যে তারা নতুন সরকার গঠন নিয়ে আলোচনা শুরু করেছে।
 
 "জনগণ, সরকার এবং ভবিষ্যতে রাষ্ট্র গঠনের জন্য যে কোনো কর্মকর্তা আফগানিস্তানের নারীদের উপেক্ষা করতে পারে না। আমরা আমাদের শিক্ষার অধিকার, কাজের অধিকার এবং আমাদের রাজনৈতিক ও সামাজিক অংশগ্রহণের অধিকারকে ত্যাগ করব না," সমাবেশে নিজেদের এমন দাবীর কথা জানান  ফারিহা এসার নামে এক মানবাধিকার কর্মী।
 
সমাবেশে নারীরা বলেন, "আফগান নারীরা তাদের অধিকারের জন্য লড়াই করেছে, তালেবানরা গত ২০ বছরে নারীদের অগ্রগতি এবং তাদের সংগ্রাম উপেক্ষা করতে পারে না। আমরা বিশ বছর ধরে নিজেদের অধিকারের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছি এবং আর ফিরে যাব না।
 
 
সমাবেশে আরো বলেন, “আমরা চাপিয়ে দেওয়া সরকার চাই না।  এটি অবশ্যই আফগান নাগরিকদের ইচ্ছার ভিত্তিতে হতে হবে"।
 
তালেবান বলে আসছে, তারা ইসলামী আইনের কাঠামোর মধ্যে মহিলাদের অধিকার দেবে এবং নারীরা সমাজে একই কাঠামোর মধ্যে কাজ করতে পারবে, কিন্তু তারা এই ইসলামী কাঠামোর সংজ্ঞা কি সেটা বলেনি ।

 

 
 
 

Share this news

Print this news

  • comment / reply_from

    face comment

    বাংলাদেশ সীমান্ত এখন বড় চ্যালেঞ্জ : বিএসএফের আইজি

    ডিবিবি

    ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) দক্ষিণ বঙ্গ সীমান্তের মহাপরিদর্শক অনুরাগ গর্গ বলেছেন, বেড়া না থাকায় ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত বিএসএফের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

     

    বুধবার (২৬ জানুয়ারি) দেশটির বার্তাসংস্থা এএনআইকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেছেন তিনি।

     

    গর্গ বলেন, পশ্চিমবঙ্গ বিশাল এলাকা। আর সুন্দরবন থেকে শুরু করে মালদা পর্যন্ত দক্ষিণ বঙ্গের সীমান্ত। আমরা সীমান্তে বেড়া দেওয়ার চেষ্টা করলেও জমির অভাবে তা করা যায়নি।

     

    তিনি বলেন, সীমান্তে বেড়া নির্মাণের জন্য ১৫০ মিটার খোলামেলা জমি প্রয়োজন। সীমান্তের আশপাশে গ্রামের পর গ্রাম আছে। আমরা জানি যে, দেড়শ মিটার উন্মুক্ত জমি প্রয়োজন। কিন্তু এখানে তা পাওয়া যায় না। এটা বোঝাও মুশকিল যে, কে বাঙালি আর কে বাংলাদেশি। এমনকি বাংলাদেশ সীমান্ত রক্ষী বাহিনীও (বিজিবি) মাদক নিয়ে উদ্বিগ্ন।

     

    সীমান্তে বেড়া নির্মাণের জন্য পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের কাছে জমি চাওয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে কি-না; এমন এক প্রশ্নের জবাবে বিএসএফের দক্ষিণ বঙ্গ সীমান্তের মহাপরিদর্শক অনুরাগ গর্গ বলেন, কিছু কিছু এলাকায় বেড়া দেওয়া সম্ভব নয়। রাজ্য সরকারের আওতাধীন হওয়ায় আমরা জমি পাওয়ার চেষ্টা করছি। তাদের (রাজ্য সরকারের) পক্ষ থেকে কোনও ধরনের প্রতিবন্ধকতা আসেনি।

     

    তিনি বলেন, এটি রাজ্য সরকারের জন্যও এক ধরনের চ্যালেঞ্জ। কারণ সীমান্তে বসবাসকারী লোকজন জমি অধিগ্রহণের অনুমতি দেয় না।

     

    সীমান্তে যানবাহনের ভুয়া লাইসেন্স জব্দ করার বিষয়ে গর্গ বলেন, সীমান্ত এলাকায় ভুয়া লাইসেন্সধারীদের প্রবেশ উদ্বেগজনক হয়ে দাঁড়িয়েছে। যে কারণে বিএসএফ এখন সীমান্ত এলাকায় আসা-যাওয়া করা পণ্যবাহী যানবাহনের লাইসেন্স যাচাই-বাছাই করছে।

     

    তিনি বলেন, ‌আমরা ভুয়া লাইসেন্সসহ অনেক যানবাহন আটক করেছি এবং এফআইআর দায়ের করার জন্য পুলিশকে নাম জানিয়ে দিয়েছি।

    ইংল্যান্ডে আজ থেকে শিথিল করা হয়েছে করোনার বিধিনিষেধ

    ডিবিবি

    ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাস মহামারী নিয়ন্ত্রণে দেওয়া বিধিনিষেধ আজ থেকে শিথিল করা হয়েছে।করোনা প্রতিরোধী টিকা প্রদান কার্যক্রমে সাফল্যের কারণে গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা কমেছে ইংল্যান্ডে। করোনা রোগীদের পাশাপাশি হাপাতালে ভর্তির হারও কমেছে। সে জন্য এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

     

    বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারী) থেকে ইংল্যান্ডের কোথাও বাধ্যতামূলকভাবে ফেস মাস্ক পরতে হবে না। নৈশক্লাব ও জনসমাবেশ হয় এমন স্থানে প্রবেশে কভিড পাসও লাগবে না।

     

    স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও নর্দান আয়ারল্যান্ড জনস্বাস্থ্য বিষয়ে নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। তারাও করোনা বিধিনিষেধ শিথিল করেছে।

     

    স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেছেন, অন্যান্য ফ্লুয়ের ক্ষেত্রে যেভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়- মহামারী পরবর্তী পর্যায়ে কভিড-১৯ এর চিকিৎসার বিষয়েও সেরকম পরিকল্পনা করছেন তারা।

    সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

    তুষারপাতে বিপর্যস্ত তুরস্ক, ছিন্নমূল মানুষদের আশ্রয়ে খুলে দেয়া হলো মসজিদ

    ডিবিবি

    ভারী তুষারপাতে অচল তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুল। বরফ পরিষ্কার এবং গুরুতর অসুস্থদের হাসপাতালে পৌঁছাতে কাজ করছে দেশটির সেনাবাহিনী।

     

    বুধবার (২৬ জানুয়ারি) ভোর পর্যন্ত আড়াই ফুটের বেশি তুষারপাত রেকর্ড করেছে দেশটির জাতীয় আবহাওয়া অধিদফতর।

     

    মঙ্গলবার থেকে যান চলাচলের ওপর আরোপিত হয়েছে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা। বন্ধ করা হয়েছে সব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান এবং শপিং মল। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাজধানীবাসীকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন শহরের গর্ভনর। ছিন্নমূলদের আশ্রয়ে ৭১টি মসজিদ খুলে দিয়েছে ইস্তাম্বুল প্রশাসন।

     

    এদিকে, প্রায় একদিন স্থগিত থাকার পর ইস্তাম্বুল আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্টের একটি টার্মিনাল সীমিত পরিসরে চালু হয়েছে। গতিপথ পাল্টানো হচ্ছে অনেক ফ্লাইটের। তাতে ভোগান্তিতে পড়েছেন হাজার-হাজার যাত্রী। আগামী কয়েকদিনে বহাল থাকবে এই বৈরী আবহাওয়া।

    তাইওয়ানের আকাশে চীনের ৩৯টি যুদ্ধবিমান

    ডিবিবি

    আবারও তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করলো চীন। রোববার (২৩ জানুয়ারি) বিনা অনুমতিতে ৩৯টি যুদ্ধবিমান প্রবেশ করে দেশটির ভূখণ্ডে।

     

    দ্বীপরাষ্ট্রটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বিবৃতিতে জানায়, গত অক্টোবরের পর এটাই সবচেয়ে বড় অনুপ্রবেশের ঘটনা। অংশ নিয়েছে ৩৪টি ফাইটার জেট, চারটি ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ার এবং একটি বোমারু বিমান। যেগুলো, রোববার প্রাতাস দ্বীপের ওপর দিয়ে মহড়া চালায়।

     

    এসময়, রেডিও’র মাধ্যমে সতর্কবার্তা পাঠায় তাইওয়ান এয়ারফোর্স। একইসাথে, প্রস্তুত রাখে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। অবশ্য, চীনের তরফ থেকে অনুপ্রবেশ সংক্রান্ত কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি। বরং দেশটির বক্তব্য- সার্বভৌমত্ব এবং সীমান্ত সুরক্ষায় তারা নিয়মিত টহল দিচ্ছিল।

    বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপরাষ্ট্র টোঙ্গা

    ডিবিবি

    এখনও ছাইয়ের স্তুপের নিচে দ্বীপরাষ্ট্র টোঙ্গা। নজিরবিহীন অগ্ন্যুৎপাতে বিপর্যস্ত দেশটিতে এখনও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বেশিরভাগ এলাকা। একমাত্র সাবমেরিন ক্যাবল ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় চালু করা সম্ভব হয়নি ইন্টারনেট ও আন্তর্জাতিক ফোন সার্ভিস। স্মরণকালের ভয়াবহতম অগ্ন্যুৎপাতে ক্ষতিগ্রস্থ সাবমেরিন ক্যাবলও। তাই বাকি বিশ্ব থেকে এক প্রকার বিচ্ছিন্ন প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশটি।

     

    বিপর্যস্ত দেশটির পাশে দাঁড়াতে জরুরি সাহায্য নিয়ে ছুটছে বিভিন্ন দেশ। তবে বিমানবন্দর ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় সহায়তা আসছে সাগরপথে। এরইমধ্যে ত্রাণ সরবরাহে কাজ করছে জাতিসংঘ আর রেডক্রস। প্রধান বিমানবন্দরের রানওয়ের সংস্কারে কাজ করছে জাতিসংঘ ও নিউজিল্যান্ডের বিশেষজ্ঞ-স্বেচ্ছাসেবীরা।

     

    জাতিসংঘের প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল বিষয়ক কো-অর্ডিনেটর জোনাথন ভেইচ বলেন, জাতিসংঘের সব কর্মীরা নিরাপদে আছেন। দুর্গতদের সহায়তায় কাজ শুরু করেছেন তারা। পানি, খাবার ও তাবু সরবরাহ করছি। ক্ষয়ক্ষতিও খতিয়ে দেখার চেষ্টা চলছে। সাবমেরিন ক্যাবল ধ্বংস হওয়ায় ইন্টারনেটসহ টেলিসেবা প্রায় বন্ধ। বিশেষ ব্যবস্থায় কিছু স্থানে সেবা চালু হয়েছে।

     

    অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে প্রস্তুত হচ্ছে ত্রাণবাহী জাহাজ ‘এইচএমএএস এডিলেইড।’ পণ্যসামগ্রী নিয়ে শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) এটি রওয়ানা দেবে টোঙ্গার উদ্দেশে। ফিজির প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রকৌশলীদের একটি দলও আছে এই বহরে। জরুরি সহায়তা নিয়ে নিউজিল্যান্ড থেকে রওয়ানা দিয়েছে নৌবাহিনীর একটি জাহাজ। যাত্রা শুরুর অপেক্ষায় আরও একটি।

     

    অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেন, তাদের যা কিছুই প্রয়োজন আমরা পাশে দাঁড়াবো। আমাদের সেনারা সেখানে কাজ করছে। ত্রাণবাহী পণ্য পাঠানো হচ্ছে।

     

    নিউজিল্যান্ডের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফিজির সাথে সংযুক্ত টোঙ্গার একমাত্র সাবমেরিন ক্যাবল সংস্কারে সময় লাগতে পারে আরও অন্তত এক মাস। তাই ইন্টারনেট ও আন্তর্জাতিক টেলিসেবা চালুর জন্য অপেক্ষা করতে হবে লম্বা সময়। এমনকি দুর্যোগ কবলিত অঞ্চলটির পরিস্থিতি বুঝতে স্যাটেলাইটের ছবিই ভরসা।

    ইঁদুর জাতীয় প্রাণী থেকেই করোনার দ্রুত সংক্রমন!

    ডিবিবি

    প্রতিনিয়ত করোনা সংক্রমনের নতুন নতুন তথ্য দিচ্ছেন বিশ্ব বিজ্ঞানীরা। এরই ধারাবাহিকতায় এবার করোনা সংক্রমণের আরেক নতুন তথ্য দিলেন হংকংয়ের স্বাস্থ্যবিদরা। ইঁদুর জাতীয় প্রাণী হ্যামস্টার থেকে মানুষের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ পেয়েছেন স্বাস্থ্যবিদরা। হংকংয়ে এক ব্যক্তি দোকান থেকে হ্যামস্টার কেনার পর আক্রান্ত হন কোভিডে। এ ঘটনার পর হংকংয়ে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ইঁদুর এবং খরগোশ জাতীয় সব ধরণের প্রাণী। বাড়ি বাড়ি থেকে এগুলো সংগ্রহের উদ্যোগও নেয়া হয়েছে।

    বাড়িতে পালার জন্য হংকংবাসীর কাছে যেসব প্রাণী গুরুত্ব পায় তার মধ্যে অন্যতম হ্যামস্টার। ইঁদুর জাতীয় এই প্রাণী মূলত আমদানি করা হয় ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে। এবার এই হ্যামস্টার থেকেই করোনা ছড়ানোর প্রমাণ পেয়েছেন স্বাস্থ্যবিদরা।

    হংকং কর্তৃপক্ষ জানায়, দোকান থেকে হ্যামস্টার কেনার পর করোনায় আক্রান্ত হন এক ব্যক্তি। এরপরই দোকানটির হ্যামস্টার এবং চিনচিলার মতো ইঁদুর জাতীয় সব প্রাণীর করোনা পরীক্ষা করে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ১১টি হ্যামস্টারের করোনা শনাক্ত হয়। যেগুলো এসেছে নেদারল্যান্ডস থেকে।

    হংকংয়ের কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা লিয়াং সিউ-ফাই বলেন, যে হারে ইঁদুর এবং বিড়াল জাতীয় প্রাণীগুলো থেকে করোনা শনাক্ত হয়েছে তা অত্যন্ত শঙ্কাজনক। আমরা জানি না কী পরিমাণ মানুষ এসব প্রাণীর সংস্পর্শে এসেছেন। তাই যারাই এসব প্রাণীর সংস্পর্শে এসেছেন তাদেরই পরীক্ষা করা হবে।

    এরপরই ইঁদুর এবং খরগোশ জাতীয় প্রাণীর ওপর কড়াকড়ি আরোপ করেছে হংকং কর্তৃপক্ষ। নিষিদ্ধ করা হয়েছে এসব প্রাণীর আমদানি। বন্ধ করা হয়েছে দোকানে কেনা বেচা। এমনকি অঞ্চলটির নাগরিকদের কাছ থেকে সব হ্যামস্টার সংগ্রহ করার উদ্যোগও নেয়া হয়েছে।

    লিয়াং সিউ-ফাই আরও বলেন, এরইমধ্যে ব্যবসায়ীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে এ ধরনের প্রাণীর আমদানি বন্ধ করতে। এর পাশাপাশি যারা প্রাণী উৎপাদনের সাথে জড়িত তাদেরকেও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। যারা সখের বশে এসব পালছেন তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব প্রাণী সংগ্রহ করা হবে।

    এর আগে ডেনমার্কে করোনা ছড়ানোর অভিযোগে দেড় কোটির কোটির বেশি মিঙ্ক পুড়ি মারা হয়।

    আফগানিস্তানে শক্তিশালী ভূমিকম্পে  ২৬ জনের মৃত্যু

    ডিবিবি

     

    আফগানিস্তানে শক্তিশালী ভূমিকম্পে অন্তত ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) দেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ৫.৩ মাত্রায় ভূমিকম্পের খবর জানিয়েছে এএফপি।

    পশ্চিম আফগানিস্তানের বাদঘিস প্রদেশের মুখপাত্র বাজ মোহাম্মদ সারওয়ারি বলেন, কাদিস জেলায় বাড়ির ছাদ ধসে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

    তিনি জানান, নিহতদের মধ্যে পাঁচ জন নারী ও চার শিশু রয়েছে। এছাড়াও আহত হয়েছেন চার জন। ওই প্রদেশের মুক্বর জেলাতেও ভূমিকম্পে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

    আফগানিস্তান তালেবানের দখলে আসার পর এমনিতেই মানবিক বিপর্যয়ের কবলে পড়েছে দেশটি। কারণ পশ্চিমা দেশগুলো আর্থিক সহায়তা বন্ধ করে দিয়েছে এবং বিদেশে থাকা সম্পদও আটকে দিয়েছে। এরইমধ্যে এ ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয় সেখানের মানুষের সমস্যা আরও বাড়াবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

    ২০১৫ সালে প্রবল ভূমিকম্পে আফগানিস্তানে ২৮০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। পার্বত্য এলাকায় ছিল রিখটার স্কেলে ৭.৫ মাত্রার ওই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল। সেই ভূমিকম্পের প্রভাব পুরো দক্ষিণ এশিয়ায় দেখা দিয়েছিল। আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানেও অনেকের প্রাণহানি হয়েছিল।

    এদিকে আফগানিস্তানে ফৈজাবাদে শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) রাতে ভূমিকম্প হয়েছিল। যদিও ওই ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ওই দিন রিখটার স্কেলে ৫.৩ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছিল আফগানিস্তানের ফৈজাবাদ। শুক্রবারের ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল ফৈজাবাদ থেকে ১১৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে। 

    শুক্রবার ইন্দোনেশিয়ার প্রধান দ্বীপ জাভাতেও জোরাল কম্পন অনুভূত হয়েছিল। কম্পন অনুভূত হয়েছিল রাজধানী জাকার্তাতেও। তবে ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ওই ভূমিকম্পে সুনামির কোনো আশঙ্কা নেই বলেও সরকারি সূত্রে জানানো হয়েছিল।

    আল-আকসায় ইহুদিদের তাণ্ডব

    ডিবিবি

    ইসরায়েলি ইহুদি বসতি স্থাপনকারীরা আল-আকসা মসজিদে তাণ্ডব চালিয়েছে। একটি ফিলিস্তিনি সংস্থা জানিয়েছে, বসতি স্থাপনকারীরা জোর করে ওই পবিত্র মসজিদে প্রবেশ করে এসব অবৈধ কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। আর এতে তাদের সহায়তা করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।

     

    বার্তা সংস্থা আনাদোলু নিউজ-এর খবরে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

    জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ ও অন্যান্য পবিত্র স্থানের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা জর্ডানের ইসলামিক ওয়াকফ বিভাগ এক বিবৃতিতে বলেছে, ইসরায়েলি ইহুদি বসতি স্থাপনকারীরা আল-মুগারবাহ গেট দিয়ে আল-আকসা মসজিদ কমপ্লেক্সের মধ্যে প্রবেশ করে। এ সময় তাদের নিরাপত্তা দিচ্ছিল ইসরাইলি সেনাবাহিনী।

     

    জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ হল মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্র স্থান। ইহুদিরা আল-আকসা মসজিদ সংলগ্ন এলাকাকে টেম্পল মাউন্ট বলে অভিহিত করে থাকে।

     

    ইহুদিদের দাবি, এখানে প্রাচীনকালে দু’টি ইহুদি মন্দির বা উপাসনালয় ছিল।


    ২০০৩ সাল থেকে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের প্রায় প্রতিদিনই আল-আকসা মসজিদে প্রবেশের অনুমতি দিয়ে আসছে। ফিলিস্তিনের ওয়াকফ ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ২০২১ সালে মোট ৩৪ হাজার ৫৬২ ইহুদি বসতি স্থাপনকারী আল-আকসা মসজিদে প্রবেশ করে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে।

     

    উল্লেখ্য, আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পরে তেল আবিব জেরুজালেম দখল করে নেয়।

     

    এরপর থেকে সেখানে বসতি স্থাপন করছে। যদিও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় জেরুজালেম দখল করার বিষয়টিকে কখনোই স্বীকৃতি দেয়নি।

    newsletter

    newsletter_description